মাল্টার রাষ্ট্রপতির সাথে বাংলাদেশ হাইকমিশনারের সাক্ষাৎ

মাল্টায় নিযুক্ত বাংলাদেশের অনাবাসী হাইকমিশনার মো জসীম উদ্দিন বৃহস্পতিবার (১৬ জুলাই) সেদেশের রাষ্ট্রপতি ডক্টর জর্জ ভেল্লার সাথে সাক্ষাৎ করেন।

সাক্ষাৎকালে রাষ্ট্রপতির কাছে আগামীতে দু'দেশের মধ্যকার দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক জোরদারের সম্ভাব্য রূপরেখা তুলে ধরেন। এ সময় তিনি মাল্টা ও বাংলাদেশের মধ্যে পররাষ্ট্র সচিব পর্যায়ে নিয়মিত আলোচনা এবং বাংলাদেশে মাল্টার পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সফর এর সম্ভাবনা নিয়েও কথা বলেন। তথ্যবিবরণী

মাল্টার রাষ্ট্রপতি দু'দেশের অর্থনৈতিক সর্ম্পক জোরদার এবং অভিবাসন বিষয়ে পারস্পরিক সহযোগিতার ওপর গুরুত্ব আরোপ করেন। হাইকমিশনারের কাছে বাংলাদেশের সামগ্রিক করোনা পরিস্থিতির বিষয়ে জানতে চান। করোনা মহামারীর বিস্তাররোধ ও ক্ষয়ক্ষতি সীমিত রাখতে বাংলাদেশ সরকারের ভুমিকার প্রশংসা করেন।

একই দিন সকালে হাই কমিশনার মাল্টার পররাষ্ট্রমন্ত্রী এভারিস্ট বারতোলোর সাথে তার দপ্তরে সাক্ষাৎ করেন। বৈঠকে রোহিঙ্গা সমস্যার মোকাবেলায় বাংলাদেশের প্রতি মাল্টার অকুণ্ঠ সমর্থন এর জন্য পররাষ্ট্রমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানান এবং রোহিঙ্গা সমস্যা সমাধানে বৈশ্বিক অঙ্গনে মায়ানমারের ওপর চাপ তৈরিতে মাল্টার পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সমর্থন প্রত্যাশা করেন। পররাষ্ট্রমন্ত্রী ভবিষ্যতেও এই বিষয়ে মাল্টার সক্রিয় সমর্থন অব্যাহত থাকবে বলে বাংলাদেশ হাইকমিশনারকে আশ্বাস দেন।

মাল্টার প্রবাসী শ্রমিকের ক্রমবর্ধমান চাহিদার কথা উল্লেখ করে সেদেশে বাংলাদেশ থেকে জনশক্তি নিয়োগের বিষয়টি বিবেচনার অনুরোধ জানান। পররাষ্ট্রমন্ত্রী বাংলাদেশ থেকে শ্রমিক নিয়োগের ইচ্ছা প্রকাশ করেন এবং এই লক্ষ্যে একটি সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরের প্রয়োজনীয়তার কথা উল্লেখ করেন।

হাই কমিশনার গত বছরে অনুষ্ঠিত বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর মাল্টা সফরের প্রেক্ষিতে মাল্টার পররাষ্ট্রমন্ত্রীর বাংলাদেশে ফিরতি সফরের কথা উল্লেখ করে জানান যে উক্ত সফরে একটি ব্যবসায়ী প্রতিনিধিদল পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সফরসঙ্গী হতে পারেন। যার ফলে দু'দেশের মধ্যে ব্যবসা-বাণিজ্যের ক্ষেত্রে সহযোগিতার নতুন দিগন্ত উন্মোচনের সুচনা হবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন।

এছাড়া, বাংলাদেশ হাইকমিশনার মাল্টা চেম্বারের প্রেসিডেন্ট ডেবিড শুয়েরেবের সাথে দুদেশের মধ্যকার ব্যবসায়িক সম্পর্ক বৃদ্ধির বিষয়ে আলোচনা করেন।

ওমেন্স নিউজ ডেস্ক/