সাহসের জন্য বিশ্বজুড়ে আলোচিত যে আফগান কিশোরী

বন্দুক হাতে কামার গুল

জঙ্গি গোষ্ঠী তালেবান গত কয়েক বছর ধরে ঘাঁটি গেড়েছে এশিয়ার যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশ আফগানিস্তানে। সেখানে তারা প্রায়ই রক্তক্ষয়ী হামলা চালিয়ে বহু নিরীহ আফগান নাগরিককে হত্যা করে তাকে। কিন্তু এবার এক ব্যতিক্রমী ঘটনা ঘটলো দেশটিতে। এক সাহসী আফগান কিশোরী একে-৪৭ রাইফেল দিয়ে গুলি করে হত্যা করেছে দুই তালেবান যোদ্ধাকে। হ্যা, কিশোরীই তো! বড়জোর ১৪-১৬ বছর বয়স! আর এ কারণেই তো তার প্রশংসায় ভাসছে গোটা দেশ। তাদের চোখে সে এখন বীর। সূত্র: গালফ নিউজ

জানা যায় বাবা-মায়ের হত্যার প্রতিশোধ নিতেই তালেবানদের খুন করেছেন কামার গুল নামের ওই কিশোরী। গত সপ্তাহে ঘোর প্রদেশের এক গ্রামে এই ঘটনাটি ঘটে বলে আন্তর্জাতিক সংবাদ মাধ্যমগুলো জানাচ্ছে।

জানা যায়, ওমর গুলের বাবা হাবিবুররহমান মালেকজাদা ছিলেন একজন গ্রাম্যপ্রধান। তিনি আফগান সরকারকে সমর্থন করতেন। এই অপরাধে তালেবানরা গত সপ্তাহে তার বাড়িতে চড়াও হয়। তাকে টেনে হিঁচড়ে নিয়ে যেতে থাকেন। এসময় তাদের বাধা দেয়ার চেষ্টা করেন কামার গুলের মা।  তখন ক্ষিপ্ত হয়ে তালেবানরা তার বাবা-মা দুইজনকে হত্যা করে।

এসময় একে-৪৭ বন্দুক হাতে বাড়ি থেকে বেরিয়ে আসেন কিশোরী ওমর গুল। এরপর তালেবান জঙ্গিদের উদ্দেশ্য করে গুলি ছুড়তে শুরু করে সে। এতে দুই তালেবান নিহত এবং আরও বেশ কয়েকজন আহত হয়। এ ঘটনার পর তালেবান যোদ্ধারা অবশ্য তাকে হত্যার জন্য ফের বাড়িতে হামলা চালিয়েছিল। কিন্তু গ্রামবাসীদের প্রতিরোধের মুখে তারা পালিয়ে যায়। এরপরই কিশোরী ওমর গুল ও তার ছোট ভাইয়ের নিরাপত্তার দায়িত্ব নিয়েছে আফগান নিরাপত্তা বাহিনী। তাদের গোপনস্থানে লুকিয়ে রাখা হয়েছে।

এদিকে তালেবান যোদ্ধাদের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তোলায় ওমর গুলের প্রশংসায় ভাসছে আফগান সংবাদ মাধ্যমগুলো। মিডিয়ার কল্যাণে এই কিশোরী এখন আফগানিস্তানের ‘বীর’।  দিন কয়েক আগে সামাজিক মাধ্যমে তার একটি ছবি ভাইরাল হয়েছে। যেখানে ওড়না মাথায় মেশিনগান হাতে দাঁড়িয়ে আছেন গুল। এই ছবিতে সবাই গুলের সাহসিকতার প্রশংসা করেছেন। কারো ভাষায়, ‘পাওয়ার অব অ্যান আফগান গার্ল’(Power of an Afghan girl)। কেউ বা বলছেন, ‘সাবাশ গুল, খুব ভালো করেছ। (Hats off to her courage! Well done)।

ওমেন্স নিউজ ডেস্ক/

 

লাইক, কমেন্টস, শেয়ার দিয়ে আমাদের সাথে থাকুন