ভিখারি থেকে যেভাবে ক্যাফেটেরিয়ার মালিক এই তরুণী

নাম তার জ্যোতি। বয়স মাত্র ১৯ বছর। এই বয়সেই নিজের জন্য বিরাট সাফল্য বয়ে এনেছেন এই তরুণী। তার জন্ম এবং পরিবারের পরিচয় অজানা। শুরুটা হয়েছিলো ভারতের পাটনা শহরে। শৈশবেই বাবা-মা পাটনা রেলস্টেশনে ফেলে গিয়েছিলেন জ্যোতিকে। অসহায় শিশুটিকে কাঁদতে দেখে ওই স্টেশনেরই এক ভিখারি দম্পতি তাকে কাছে টেনে নেয়। ওই দম্পতির সঙ্গে ভিক্ষা করেই দিন কাটতে থাকে তার। এভাবে স্টেশন চত্বরে আর পাঁচটা অনাথ শিশুর মতোই বড় হচ্ছিলেন জ্যোতি। কোনও দিন খাওয়া জুটত, কোনও জুটত না। এ ভাবেই দিন কাটছিল তার। কিন্তু জ্যোতি কিছু একটা করার স্বপ্ন দেখা শুরু করেছিল সেই সময় থেকেই।

পড়াশোনার প্রতি তাঁর খুব ঝোঁক ছিল। কিন্তু তার মতো এক জন অনাথ ভিখারির সেই স্বপ্ন পূরণ হবে কীভাবে? ফলে হতাশায় ডুবে যেতে থাকেন জ্যোতি। কিন্তু তার এই সাধ পূরণে অনেকেই এগিয়ে আসেন। তার পালক মা-বাবাও মেয়ের ইচ্ছা পূরণের চেষ্টা চালিয়ে যান।

অবশেষে তাকে সাহায্য করে ভাগ্য। পাটনা জেলা প্রশাসনের মাধ্যমে  জ্যোতির কথা জানতে পারে সেখানকার একটি বেসরকারি সংস্থা। সেই ওই সংস্থার উদ্যোগে পড়াশোনা শুরু করেন জ্যোতি । জীবনের মোড় ঘুরাতে পড়াশোনায় খুব মনোযোগী ছিলেন তিনি। ফলে মাধ্যমিক পরীক্ষায় ভালো ফলাফল করেন। এরপরই তার জীবনটা বদলে যায়। পাটনা রেলওয়ে স্টেশন ছেড়ে ওঠে আসেন একটা ভাড়া বাড়িতে। আর স্টেশনের কাছে একটি ক্যাফেটেরিয়া খুলেন জ্যোতি।

জ্যোতির ক্যাফেটেরিয়ােএখন ভালোই চলছে। ক্যাফেটেরিয়ার চালানোর ফাঁকে ফাঁকে নিজের স্বপ্ন পূরণের লক্ষ্যে পড়াশোনাও চালিয়ে যাচ্ছেন এই তরুণী। ভবিষ্যতে মার্কেটিং নিয়ে উচ্চতর ডিগ্রি নিতে চান জ্যোতি। এরপর জীবনে আরও সাফল্য বয়ে আনতে চান জ্যোতি। তার লক্ষ্য এখন কেবল এগিয়ে যাওয়া।

ওমেন্স নিউজ ডেস্ক/

লাইক, কমেন্টস, শেয়ার দিয়ে আমাদের সাথে থাকুন