বিবেক পালের কবিতা ‘কথা ছিল’

বিবেক পাল

কথা ছিল

ফাগুনে আবির ঢালা আকাশ
কৃষ্ণচূড়া অশোক পলাশ শিমূলের বনে
অনুরাগ বেঁধেছে বাসা এ'বসন্ত পবনে ।

তুমি আসবে বলে-
প্রভাতে সন্ধ্যায় কৃষ্ণ-কোকিলের সুর ঝরে,
ভূমি বুকে শুভ্র সজনে-ফুল গন্ধ ছড়ায় ।

হৃদয়ে ভাঁটফুল চাঁপা; বিস্তীর্ণ শস্যের দোল
আকাশ তলে বয়ে চলা নদীজল বেদনায় নীল,
বিস্তীর্ণ চরজুড়ে জীর্ণ কুটির ।

এখনও ফোটেনি ভোরের কুসুম
নিদ্রাহীন জীবনে-
ওরা হাঁটছে, প্রভাতী দিনের প্রত্যাশায়।

মানুষ আজও বড়ই অসহায়
শ্রম  লুঠে, অভুক্ত পাকস্থলী ,
ক্ষয়ে যায় দিন , বিষন্ন গোধূলি !

তুমি আসবে বলে-
রাজপথজুড়ে উজ্জ্বল উপস্থিতি
মুষ্টিবদ্ধ হাত , স্লোগানে স্লোগানে মুখরিত।

ফিরে আসবো বলে ছেড়ে ছিল ঘর, একদিন যারা
খালি বুক, দাওয়ায় বসে গুণছে আজও প্রহর ।
একবার কোল হলে খালি, আর ভরে নালো ভরে না-

'আমি মানি না মানবো না এ গ্রাম্য প্রবাদ মা'গো '
আমরা ফিরে আসবোই তোমার কোলে-
মাথা রেখে শুয়ে থাকবো বলে ।

বসন্ত ফিরে ফিরে আসে ভালোবাসার নীড় গড়বে বলে।

কবি পরিচিতি: বিবেক পাল ভারতের পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের বাসিন্দা। থাকেন দার্জিলিং জেলার শিলিগুড়িতে। কবিতার সঙ্গে সখ্যতা তার শৈশব থেকে। বলতে গেলে কবিতা লেখা ও পড়া তার একমাত্র নেশা। তবে প্রচারবিমুখ এই কবি খুব বেশি পত্রিকায় লেখা দেন না। যদিও স্থানীয় কয়েকটি লিটলম্যাগে তার বেশ কিছু কবিতা ছাপা হয়েছে। পেশা জীবনে তিনি একজন ব্যবসায়ী।

ওমেন্স নিউজ/