সীতাকুন্ডে অক্সিজেন প্ল্যান্টে ভয়াবহ বিস্ফোরণ: নিহত ৫. আহত ৩০

চট্টগ্রামের সীতাকুন্ড উপজেলায় একটি অক্সিজেন প্ল্যান্টে বিস্ফোরণের ঘটনায় ৫ জন নিহত এবং আরো ৩০ জন আহত হয়েছেন। উপজেলার কদমরসুল এলাকায় ‘সীমা অক্সিজেন’ নামক অক্সিজেন প্ল্যান্টে শনিবার (৪ মার্চ) বিকেল সাড়ে ৪ টার দিকে বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। সূত্র- বাসস

স্থানীয়দের বরাত দিয়ে সংবাদ সংস্থা বাসস জানায়, শনিবার বিকেল সাড়ে ৪ টার দিকে সীমা অক্সিজেন প্ল্যান্টের ভিতরে বিকট শব্দে বিস্ফোরণ ঘটে। এর পরপরই সেখানে আগুন জ¦লতে দেখা যায়। অল্পক্ষণের মধ্যেই সীতাকুণ্ড ও কুমিরা ফায়ার স্টেশনের ৯ টি ইউনিট ঘটনাস্থলে পৌঁছে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। বিস্ফোরণে ও আগুনে আহতদের উদ্ধার করে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়।

নিহতদের মধ্যে চারজনের পরিচয় পাওয়া গেছে। তারা হলেন- সীতাকুণ্ডের ফৌজদারহাট বাংলাবাজার এলাকার বাসিন্দা ফরিদ (৩৪), সীতাকুণ্ডের কদমরসুল এলাকার শামসুল আলম (৬৫), নেত্রকোণার কলমাকান্দা উপজেলার ছোট মনগড়া গ্রামের মিকি রেঙি লখরেটের ছেলে রতন লখরেট (৪৫) এবং নোয়াখালীর সুধারাম থানার অলিপুর গ্রামের মকবুল হোসেনের ছেলে আবদুল কাদের (৫০)।

আগুন নিয়ন্ত্রণের পরপরই পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিস সদস্যরা নিহত ও আহতদের উদ্ধারে তৎপরতা শুরু করেন। পরে সেনাবাহিনী উদ্ধার কাজে যোগ দেয়। বিস্ফোরণের কারণ সম্পর্কে তাৎক্ষণিকভাবে সুস্পষ্ট করে কিছু জানাতে পারেনি ফায়ার সার্ভিস। তবে স্থানীয়রা মালিক পক্ষের গাফিলতিতে এ বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটেছে বলে দাবি করেছেন। বিস্ফোরণের কারণ অনুসন্ধানে তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করেছে চট্টগ্রামের জেলা প্রশাসন।

চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল পুলিশ ফাঁড়ি সূত্র বলেছে, ঘটনার পরপরই দগ্ধ ও আহতদের এম্বুলেন্স ও বিভিন্ন গাড়িতে করে হাসপাতালে আনা হচ্ছে। আহতদের মধ্যে ১০ জন হলেন, নারায়ণ দাশ (৬০), জসিম উদ্দীন (৪৩), মো. লিটন (৫০), ফেন্সি (২৮), মুজিবুর রহমান (৪০), আবদুল মোতালেব (৫২), প্রবেশ লাল শর্মা (৪৮), ইঞ্জিনিয়ার শাহরিয়ার (২৮), মো. আজাদ (২২) এবং গাড়ির চালক সোলেমান।

এদিকে, আহতদের চিকিৎসার খোঁজ নিতে শনিবার সন্ধ্যায় চট্টগ্রাম হাসপাতালে যান জেলা প্রশাসনের নেজারত ডেপুটি কালেক্টর মো. তৌহিদুল ইসলাম। তিনি বলেন, “আহতদের চিকিৎসার সব খরচ ও ওষুধ দেওয়া হবে।”

চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে কন্ট্রোল রুম খোলা হয়েছে।

ওমেন্স নিউজ ডেস্ক/