জিল্লুর রহমান প্রামানিকের কবিতা ‘তবুও দেখি ফুল – পাখি – প্রজাপতি’

জিল্লুর রহমান প্রামানিক

তবুও দেখি ফুল – পাখি – প্রজাপতি

অন্ধকারে হাঁটতে হাঁটতে
আমি অন্ধকারেই রয়ে গেলাম!
আলোর অচেনা শরীর আর আমার
দেখা হলো না!
কত-শত রাত উন্নিদ্র কুয়াশার আঁচলে
নিজেকে লুকিয়ে জড়িয়ে রেখেছি
এই নিরন্ন আঁধারের কালো মুতি ঠোঁটে!
আমাকে রেখে সবাই গোলাপি আলোর
ঝাঁঝালো শরীরের উম মেখেছে গায়।
আমি আর আমার পোষা সেই বিপন্ন
অনাহারী-বুভুক্ষু চাঁদ
আলোর ঝলকানিতে আন্ধা নক্ষত্রের
শরীর ঘেষা মেঘের নিরম্বু চঞ্চুর
জল নহরের তৃষ্ণার ভেতর অবিরাম
সাঁতার কেটে কেটে ক্লান্ত সরীসৃপ যেনো
– আঁধারে আঁধারে স্বপ্নের লীলাবতী
রোদের ফেরিওয়ালা!
তবুও দেখি ফুল – পাখি – প্রজাপতি
সবাই আলোতে যায়
সময়ের নির্যাতিত ডানায়
উদ্দাম নিরুদ্বেগ উদ্দীপনায়।
আমি এখনো আঁধারে আঁধারে
স্বপ্নময় দ্যোতিত আলোর রঙ দেখি
কল্পনার কালো কালো তোরঙ্গে
আমার চোখের ভেতর অনন্ত প্রহর
উন্নিদ্র আলোর নহর স্থির-নিঃশব্দে স্তনিত হয়
আলো হারা রূপোলী স্রোতের জল পুকুর!

ওমেন্স নিউজ সাহিত্য/